সভ্যতার আলো

সভ্যতার আলো, তার লিখনী দিয়ে আরো উন্নত ও সমৃদ্ধশালী সভ্য জাতি গঠনে অনন্য ভূমিকা রাখবে

জাতিসংঘের সদর দফতরে বাঙালির জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য স্থাপন করতে চায় সরকার

বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে জাতিসংঘের সদর দফতরে বাঙালির জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য স্থাপন করতে চায় সরকার। দক্ষিণ আফ্রিকার বর্ণবাদ বিরোধী নেতা ও সেদেশের গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত প্রথম রাষ্ট্রপতি নেলসন ম্যান্ডেলার মতো বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য স্থাপনের উদ্যোগ এরই মধ্যে নেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। 

বুধবার (২ অক্টোবর) সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির বৈঠকে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব ও কাউন্সিলর অফিসার মো. মোশারফ হোসেন মোল্লা স্বাক্ষরিত কার্যপত্রে এসব তথ্য উপস্থাপন করা হয়।

এর আগে, স্থায়ী কমিটির পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে মন্ত্রণায় গৃহীত পদক্ষেপসমূহ জানতে চাওয়া হয়। এর প্রেক্ষিতে বৈঠকে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে গৃহীত যাবতীয় পদক্ষেপ তুলে ধরা হয়।

কার্যপত্রে আরও উল্লেখ করা হয়, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে জাতীয় সমন্বয় কমিটির নিকট সর্বমোট ৮৯ টি ইভেন্ট এর তালিকা দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে ৫০টি দেশীয় ও ৩৯টি আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট। এসব খেলাধুলা/ টুর্নামেন্ট আয়োজনের জন্য সর্বমোট ৩০৬ কোটি ২৩ লাখ টাকার সম্ভাব্য বাজেট অনুমোদনের জন্য সুপারিশ প্রেরণ করা হয়েছে।

কার্যপত্রে উল্লেখ করা হয়, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে সব খেলা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর নামে দেয়া হবে। জাতীয় পর্যায়ের জন্মশতবার্ষিকী সুষ্ঠুভাবে উদযাপনের লক্ষ্যে সরকার কর্তৃক  চলতি বছরের ১৪ ফেব্রুয়ারি ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মবার্ষিকী উদযাপন জাতীয় কমিটি’ গঠন করা হয়। জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির প্রথম সভা ৮ এপ্রিল অনুষ্ঠিত হয়। সভায় যুব ক্রীড়া মন্ত্রণালযয়ের প্রতিমন্ত্রীকে আহ্বায়ক করে ২৭ সদস্য বিশিষ্ট আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট আয়োজনের উপ-কমিটি গঠন করা হয়। ১৭ এপ্রিলে আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট আয়োজন কমিটির প্রথম সভা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত সভায় সিদ্ধান্ত হয় নেলসন ম্যান্ডেলার মতো বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য জাতিসংঘের সদর দফতরে স্থাপন করার ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

এছাড়া অনেকগুলো সিদ্ধান্তের মধ্যে রয়েছে সকল তৃণমূল পর্যায় থেকে শুরু করে উপজেলা জেলা ও বিভাগীয় পর্যায়ে এবং সর্বশেষ জাতীয় পর্যায়ে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট আয়োজন করবে মন্ত্রণালয়। উৎসব মুখর পরিবেশে আয়োজন এর উদ্দেশ্যে এখন থেকেই প্রচার কার্যক্রম অব্যাহত রাখতে হবে। সব ফেডারেশন দ্রুত একটি বাজেটসহ বড় কর্মপরিকল্পনা তৈরি করে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ে পাঠাবে। 

বৈঠক শেষে কমিটির সভাপতি আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব বলেন, জাতিসংঘের সদর দপ্তরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি স্থাপনের উদ্যোগকে সংসদীয় কমিটিতে স্বাগত জানিয়েছে। এজন্য শক্ত কূটনৈতিক প্রচেষ্টা চালাতে হবে। 

এদিকে সংসদ সচিবালয় থেকে পাঠানো প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বৈঠকে ‘বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বিল, ২০১৯’ স্থায়ী কমিটিতে উপস্থাপন করা হয়। কমিটির সদস্যবৃন্দ বিলটি বিশদভাবে পর্যালোচনা করেন। বিলটি অধিকতর পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য কমিটির সদস্য এ এম নাঈমুর রহমানকে আহবায়ক করে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি সাব-কমিটি গঠন করা হয়।

বৈঠকে নির্বাচনি ইশতেহার অনুযায়ী প্রতিটি উপজেলায় প্রশিক্ষণ ও বিনোদন কেন্দ্র স্থাপনের লক্ষ্যে আগামী তিন মাসের মধ্যে ডিপিপি প্রণয়ন করে পরিকল্পনা মন্ত্রনালয়ে পাঠানোর সুপারিশ করা হয়। বৈঠকে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্যরা আগামী ১৭ অক্টোবর বিকেএসপি’র কার্যক্রম সরেজমিনে পরিদর্শন করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

কমিটির সভাপতি আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকবের সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটির সদস্য প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল, নাজমুল হাসান, আব্দুস সালাম মুর্শেদী, জুয়েল আরেং, এ. এম. নাঈমুর রহমান এবং জাকিয়া তাবাসসুম নেন।

বৈঠকে মুজিব বর্ষ ২০২০ উদযাপনের প্রস্তুতি নিয়ে পর্যালোচনা করা হয় যে, সকল খেলা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর নামে হবে; এবং জাতিসংঘ সদর দপ্তরে নেলসন ম্যান্ডেলার ন্যায় জাতির পিতার ভাস্কর্য স্থাপনের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।                                                                                                                                                
বৈঠকে যুব ও ক্রীড় মন্ত্রণালয়ের সচিব, বিভিন্ন সংস্থা প্রধানসহ মন্ত্রণালয় এবং জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।