সভ্যতার আলো

সভ্যতার আলো, তার লিখনী দিয়ে আরো উন্নত ও সমৃদ্ধশালী সভ্য জাতি গঠনে অনন্য ভূমিকা রাখবে

বিজিএমইএ’র সময় আবেদনের ওপর শুনানি রবিবার

নিউজ ডেস্ক : রাজধানীর হাতিরঝিল প্রকল্প এলাকায় বহুতল ভবন সরাতে তিন বছর সময় চেয়ে তৈরি পোশাকশিল্প মালিকদের সংগঠন-বিজিএমইএ’র আবেদনের ওপর শুনানি ১২ মার্চ অনুষ্ঠিত হবে।

আজ বৃহস্পতিবার প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে ৩ সদস্যের আপিল বেঞ্চ শুনানির এ দিন ধার্য করেন। বিজিএমইএ’র আইনজীবী কামরুল হক সিদ্দিকী সময় আবেদনের বিষয়টি অবহিত করলে শুনানির জন্য আদালত ১২ মার্চ শুনানির এ দিন ধার্য করেন।

ভবন ভাঙতে তিন বছর সময় চেয়ে গত বুধবার আদালতের সংশ্লিষ্ট শাখায় আবেদন জমা দিয়েছিল বিজিএমইএ। সংগঠনটির আইনজীবী ব্যরিস্টার ইমতিয়াজ মইনুল ইসলাম আবেদনের বিষয়ে সাংবাদিকদের জানান, আদালতের আদেশ মোতাবেক তিন বছর সময় চেয়ে আবেদন করা হয়েছে।

এর আগে ৫ মার্চ বিজিএমইএ ভবন ভাঙার রায় পুনির্ববেচনার (রিভিউ) আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন আপিল বিভাগ। প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে তিন সদস্যের আপিল বেঞ্চ এই রায় দেন।

আদালতে বিজিএমইএর পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী কামরুল হক সিদ্দিকী, সঙ্গে ছিলেন ব্যারিস্টার ইমতিয়াজ মইনুল ইসলাম। রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) এর পক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

রিভিউর রায়ের পর আইনজীবী ইমতিয়াজ মইনুল ইসলাম জানান, আদালত রিভিউ আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন। তবে ভাঙার জন্য ওই ভবন খালি করতে কি পরিমাণ সময় দরকার আদালত সে বিষয়ে আমাদের কাছে জানতে চেয়েছেন। আমরা মৌখিকভাবে তিন বছর সময় চেয়েছি।আদালত বৃহস্পতিবারের মধ্যে এ বিষয়ে লিখিতভাবে আবেদন করতে বলেছেন।

আদালতের সে নির্দেশ অনুযায়ী বুধবার সময় চেয়ে আবেদন করেছে বিজিএমইএ।

ভবন ভাঙার নির্দেশ দিয়ে হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে বিজিএমইএ’র আপিল ২০১৬ সালের ২ জুন খারিজ করে দেন প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে চার সদস্যের বেঞ্চ। একই বছর ৮ নভেম্বর আপিলের রায়ের পূর্ণাঙ্গ অনুলিপি প্রকাশিত হয়। রায়ে বিজিএমইএ’কে অবিলম্বে ভবন ভেঙে ফেলার নির্দেশ দেওয়া হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.