সভ্যতার আলো

সভ্যতার আলো, তার লিখনী দিয়ে আরো উন্নত ও সমৃদ্ধশালী সভ্য জাতি গঠনে অনন্য ভূমিকা রাখবে

‘শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ অপ্রতিরোধ্যে গতিতে উন্নয়নের মহাসড়কে’ গজারিয়ায় গণ সংবর্ধানায় মহিলা ও শিশু প্রতিমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার, মুন্সীগঞ্জ:মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা এমপি বলেছেন,বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে অর্জিত লাল সবুজের বাংলাদেশকে অপ্রতিরোধ্যে গতিতে উন্নয়নের মহাসড়কে নিয়ে গেছে। এখন এগিয়ে চলছে দেশের সার্বিক উন্নয়নের কাজ।
আর গজারিয়া উপজেলাও এই উন্নয়নের বাইরে নেই। এ উপজেলাকে শিল্পাঞ্চলে রূপ দেওয়ার কাজ চলছে। বাউশিয়ায় এপিআই শিল্পপার্কসহনানা উদ্যোগ নিয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে গণসংবর্ধানার জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলোচনা করেছি মুন্সীগঞ্জ জেলা সদর ও গজারিয়ার সঙ্গে সরাসরি সড়ক যোগাযোগ স্থাপনের লক্ষ্যে মেঘনা নদীতে সেতু নির্মাণ করার জন্য। গজারিয়ার বধ্যভূমি সংরক্ষণ ও উন্নয়নের লক্ষ্যে যেসব কাজ করতে হবে তার সবই করা হবে।
তিনি বলেন, তৃতীয়বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত করে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব অর্পনকরায় বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। আজ গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে জন্মস্থান গজারিয়া উপজেলাবাসী যে সম্মান দিয়েছেন, তা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রাপ্তি। গজারিয়ার প্রতিটি মানুষ আমার কাছে অনেক গুরুত্বপূর্ন।
গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বঙ্গবন্ধুর চীফ সিকিউরিটি অফিসার এবং জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ মহিউদ্দিন। গজারিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. আমিরুল ইসলামের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ শেখ মো. লুৎফর রহমান ও গজারিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. সোলেয়মান দেওয়ান। এছাড়া আরও বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান মো. আনিছ উজ জামান, মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার মেয়র হাজী মোহাম্মদ ফয়সাল বিপ্লব, মিরকাদিম পৌরসভার মেয়র মো. শহীদুল ইসলাম শাহীন, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক অ্যাডভোকেট সোহানা তাহমিনা ও মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মো. শফিউল্লাহ প্রমুখ নেতৃবৃন্দ। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন গজারিয়া উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান নেকী খোকন। গণ সংবর্ধনায় গজারিয়া উপজেলাবাসীর পক্ষ থেকে প্রতিমন্ত্রীকে নৌকা দেওয়া হয়।
এদিকে প্রতিমন্ত্রী হওয়ায় মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলায় মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা এমপিকে নিজ এলাকার পেয়ে গজারিয়াবাসী বিশেষ যেন আানন্দে আত্মহারা। উৎসবমুখর পরিবেশ সৃষ্টি হয়। গণ সংবর্ধানায় ১০ হাজারেও বেশী মানুষ একত্রিত হয়। নৌপথে ও সড়ক পথে বাদ্য বাজনা নিয়ে গণ সংবর্ধনায় অংশ নেয় এবং বিভিন্ন ¯েøাগান এবং প্ল্যাকার্ড প্রদর্শন করে অভিভাবদন জানায়। ঢাকা- চট্টগাম মহাসড়কের নারায়ণগঞ্জের মদনপুর থেকে গজারিয়ার ভবেরচর পর্যন্ত ১৫ কিলোমিটার এবং ভবেরচর থেকে গজারিয়া উপজেলা পরিষদ পর্যন্ত আরও ৮ কিলোমিটার অর্থ্যাৎ ২৩ কিলোমিটারের পথে পথে সংবর্ধানা জানায় সর্বস্তরের মানুষ। আর এই সড়ক জুড়েই সাটানো ছিল রংবেরংয়ের ছবি। এতে ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা ছাড়াও বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি গুরুত্ব পায়।
গজারিয়া উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে এলাকার গর্বিত সন্তান মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা এমপিকে এই গণ সংবর্ধনা দেওয়া হয়। এটি এই অঞ্চলের স্মরণীয় আয়োজন। মেঘনা তীরের পুরো গজারিয়ার মধ্যে যেন জাগরণ তৈরী হয়।
অন্যদিকে সংর্বধনা অনুষ্ঠানকে ঘিরে বৃহসস্পতিবার সকাল থেকেই দুরদুরান্ত থেকে বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ, আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী ও সমর্থকরা গজারিয়া উপজেলা সদরের জড়ো হতে থাকে।
বিকেল ৪ টায় গজারিয়া উপজেলা পরিষদ মাঠে গণসংবর্ধণার আয়োজন করা হলেও দুপুর ১টার দিকেই প্রখর রোদের তাপ মাড়িয়ে কানায় কানায় পরিপূর্ন হয়ে ওঠে গণসংবর্ধনাস্থল। ঢাকা-চট্রগ্রামমহাসড়কের মেঘনা সেতু অতিক্রম করে গজারিয়া উপজেলা সীমানায় প্রবেশেরপ রই চোখে পড়ে নিজ এলাকার সন্তান ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা প্রতিমন্ত্রী হওয়ায় শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়ে বড় বড় তোড়ন, ব্যানার, ফেস্টুনসহ নানা বৈচিত্রের বিলবোর্ড।
আওয়ামীলীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক এবং মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা এমপির গণ সংবর্ধনা অনুষ্ঠানকে ঘিরে দুই দিন আগে থেকেই ভবেরচর থেকে রসুলপুর পর্যন্ত উপজেলা পরিষদে যাওয়ার খানা খন্দেভরা সড়কটি বালি ও সুড়কি দিয়ে সংস্কার করেছে আওয়ামী লীগও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা। এছাড়া প্রতিমন্ত্রী আগমনকে ঘিরে গজারিয়া উপজেলায় বিভিন্ন পয়েন্টে ব্যানার, পোস্টার ও লিপলেটে ছেয়ে যায় উপজেলার সর্বত্র। স্বাধীনতার পরে আওয়ামী লীগ সরকারে মুন্সীগঞ্জ থেকে দ্বিতীয়বারের মত মন্ত্রী হয়েছেন ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা। আর ৭৫ সালের পর প্রথম বারের মত। তাই এই অঞ্চলের মানুষ এত খুশি।
এদিকে গণসংবর্ধণা অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়ার আগে মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা এমপি সরকারি গজারিয়া কলেজের ভবন নির্মাণ কাজের ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন করেনসহ আরও কয়েকটি অনুষ্ঠানে যোগ দেন এবং কাঁর বীর মুক্তিযোদ্ধা পিতা ও সম্মুখ যুদ্ধে শহীদ ভাইয়ের কবর জিয়ারত করেন।
মহিলা ও শিশুবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা এসব অনুষ্ঠানে বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মাদক ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি ঘোষণা করেছেন। আমরা কিন্তু পুরোপুরিভাবে জঙ্গিদমন করতে পারিনি, কিন্তু নিয়ন্ত্রণে আছে। বিশ্বের উন্নত দেশ যেমন আমেরিকা, ইউরোপের দেশেগুলো এখনো জঙ্গি নিয়ন্ত্রণে আনতে পারেনি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বিভিন্ন আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সহযোগীতায় ও জনগণের ঐক্যবদ্ধ থাকার কারণে জঙ্গি নিয়ন্ত্রনে আছে। তিনিস আরো বলেন, মাদকের যারা ব্যবসায়ী, সে যেই হোক না কেন, যেই দলের হোক না কেন প্রশাসন ও পুলিশের কাজ হবে থাকবে গ্রেফতার করা। আইনগত দিক থেকে কাউকে ছাড় দেওয়া হবেনা। মাদক নির্ম‚ল করতেই হবে। #

ক্যাপশন ঃ মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরার গণসংবর্ধনার একাংশ।

নাসির উদ্দিন ০৫-০৯-১৯