সভ্যতার আলো

সভ্যতার আলো, তার লিখনী দিয়ে আরো উন্নত ও সমৃদ্ধশালী সভ্য জাতি গঠনে অনন্য ভূমিকা রাখবে

ইংল্যান্ডের হাস্যকর দুই ভুলে ফাইনালে নেদারল্যান্ডস

স্পোর্টস ডেক্সঃ 

পর্তুগালের গিমারাইসে বৃহস্পতিবার রাতে দ্বিতীয় সেমি-ফাইনালে ৩-১ গোলে জিতেছে নেদারল্যান্ডস। প্রথমার্ধে মার্কাস র‌্যাশফোর্ডের গোলে ডাচরা পিছিয়ে পড়ার পর দ্বিতীয়ার্ধে সমতা টানেন মাতাইস দি লিট।

এই নিয়ে পঞ্চমবারের মতো প্রতিযোগিতামূলক টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলতে যাচ্ছে ১৯৮৮ সালের ইউরো চ্যাম্পিয়নরা।

আগামী রোববার পোর্তোয় প্রতিযোগিতাটির অভিষেক আসরের শিরোপা লড়াইয়ে মুখোমুখি হবে পর্তুগাল ও নেদারল্যান্ডস। বুধবার প্রথম সেমি-ফাইনালে ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোর হ্যাটট্রিকে সুইজারল্যান্ডকে একই ব্যবধানে হারায় বর্তমান ইউরোপ চ্যাম্পিয়নরা।

গত কয়েক বছরের ব্যর্থতা কাটিয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর লড়াইয়ে থাকা নেদারল্যান্ডস ম্যাচের শুরু থেকে অধিকাংশ সময় বল দখলে রেখে আক্রমণাত্মক ফুটবল খেলতে থাকে। প্রথমার্ধে কয়েকটি সুযোগও তৈরি করেছিল ২০১৬ সালের ইউরো ও গত বছরের রাশিয়া বিশ্বকাপে উঠতে ব্যর্থ হওয়া দলটি; কিন্তু সাফল্য মেলেনি।

এর মাঝে ৩২তম মিনিটে র‌্যাশফোর্ডের সফল স্পট কিকে এগিয়ে যায় ইংল্যান্ড। ডি-বক্সে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের এই ফরোয়ার্ডকে আয়াক্স ডিফেন্ডার দি লিট ফাউল করলে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি।

জাতীয় দলের হয়ে ২১ বছর বয়সী র‌্যাশফোর্ডের এটি ৩২ ম্যাচে সপ্তম গোল। এর মধ্যে চারটি গোল করেছেন শেষ সাত ম্যাচে।

বিরতির পরও প্রতিপক্ষের রক্ষণে চাপ ধরে রাখা নেদারল্যান্ডস ৭৩তম মিনিটে কাঙ্ক্ষিত গোলের দেখা পায়। মেমফিস ডিপাইয়ের কর্নারে সবার উপরে লাফিয়ে হেডে দলকে সমতায় ফেরান দি লিট।

৮৩তম মিনিটে জেসি লিনগার্ড জালে বল পাঠালে উল্লাসে মাতে ইংল্যান্ড। কিন্তু ভিএআরের সাহায্য নিয়ে অফসাইডের বাঁশি বাজান রেফারি। ম্যাচ গড়ায় অতিরিক্ত সময়ে।