সভ্যতার আলো

সভ্যতার আলো, তার লিখনী দিয়ে আরো উন্নত ও সমৃদ্ধশালী সভ্য জাতি গঠনে অনন্য ভূমিকা রাখবে

তিন নম্বরে ব্যাটিং পছন্দ সাকিবের

 

অনলাইন রিপোর্টার: ওয়ানডে অধিনায়ক হিসেবে সাকিবের নেতৃত্বে ৫০ ম্যাচ খেলেছে বালাদেশ দল ওই ৫০টি ম্যাচের মধ্যে ৪৮ ইনিংসে ব্যাটিং করেছেন সাকিব। তবে টিম ম্যানেজমেন্টের অংশ হয়েও অধিনায়ক মেয়াদকালে  একটিবার ও তিন নম্বরে ব্যাটিংয়ে নামেননি সাকিব।

তবে ২০১৭ সালে দক্ষিন আফ্রিকা সফর থেকে তিন নম্বরে ব্যাটিংয়ে স্বাচ্ছন্দ পাচ্ছেন সাকিব। ওয়ানডে ক্যারিয়ারে ১৯৬ ম্যাচে ১৮৪ ইনিংসে ব্যাটিং করেছেন সাকিব। যে ১৮৪ টি ইনিংসের মধ্যে তিন নম্বরে ব্যাটিং করেছেন মাত্র ১৩টি ইনিংসে।

এই ১৩টি ইনিংসের ১২টিই গত ১৮ মাসে ! ২০১৪ সালে চট্টগ্রামে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে তিন নম্বরে ব্যাটিংয়ে অভিষেকটা গোল্ডেন ডাক ! সেই সাকিবই কিনা তিন নম্বরে ১৩ ইনিংসে গড় উন্নীত করেছেন ৪১.০০ তে! ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তিন নম্বরে তার রেকর্ডটাও দারুন। গত বছর ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে তিন নম্বরে ব্যাটিংয়ে তার তিনটি ইনিংস ছিল যথাক্রমে ৯৭,৬৫,৩৭। সেই প্রতিপক্ষের বিপক্ষে তিন নম্বরে ৬ ইনিংসের ৪টিকেই পরিনত করেছেন ফিফটিতে। সর্বশেষ ফিফটিটি আবার ১০০ পার্সেন্ট স্ট্রাইক রেটে (৬১ বলে ৬১ নট আউট) !

ওয়ানডে ক্যারিয়ারে সবচেয়ে বেশি ব্যাটিং করেছেন সাকিব ৫ নম্বরে। ১২৫ ইনিংসে ৫ সেঞ্চুরি,৩০টি ফিফটিতে ৩৫.৩৩ গড়ে তার রান ৩৮৫২। কিন্তু সময়ের বিবর্তনে নিজেকে ব্যাটিংয়ে আরো বেশি মনোযোগ দিতে চান বলে তিন নম্বরে ব্যাটিংকে নিয়েছেন বেছে। এই পজিশনেই স্থায়ী হতে চান-‘ একটা সময় ছিল ব্যাটিং অর্ডার নিচে থেকেও আমাকে অনেক সময় প্রথম ১০ ওভারের মধ্যেই ব্যাটিংয়ে আসতে  হতো। তাই পাঁচে ব্যাটিং করলেও সেসময় আমার রান পেতে কষ্ট হয়নি। কিন্তু এখন যদি আমি পাঁচে ব্যাট করি তাহলে দেখা যাবে ৩৫-৪০ ওভারের আগে ব্যাটিংয়ের সুযোগ পাচ্ছি না। তাই  যত আগে নামা যায় ততই ভালো। ব্যক্তিগত ভাবে আমিও তিন নম্বরে খেলতে চাই। অধিনায়ক ও কোচকেও এই  ইচ্ছার কথা জানিয়েছি। তবে দলের প্রয়োজনে যেকোনো পজিশনে খেলতেও আমার কোনো সমস্যা নেই।’

বাংলাদেশ দলের ওপেনিং পার্টনার লম্বা হচ্ছে। তিন নম্বরে ব্যাটিংয়ের আগ্রহটা বেড়েছে সাকিবের সে কারনেই। স্লগে ব্যাট করতে চান তিনি। বিশ্বকাপে ২১ ইনিংসের একটিতেও ৩ নম্বরে ব্যাট করেননি কখনো। আসন্ন বিশ্বকাপে নিজের সেই রেওয়াজটাও ভাঙবেন সাকিব।